হেডলাইন
◈ বদলে যাচ্ছে পেনাল্টির নিয়ম ◈ তুরস্ক-ইরানে শক্তিশালী ভূমিকম্পের আঘাত, নিহত ৩ ◈ অত্যাধুনিক ইঞ্জিনেও ওঠে না গতি ◈ বরিশালের ষষ্ঠ জয়, ধরে ফেলল সিলেটকে ◈ পূর্ব জেরুজালেমে বন্দুক হামলায় নিহত ৭ ◈ গুজবে কান দেবেন না: শিক্ষামন্ত্রী ◈ রংপুরকে সহজ লক্ষ্য দিল সিলেট ◈ নাইজেরিয়ায় বোমা হামলায় নিহত ৪০ ◈ শেষ রাতে কুয়াশা পড়তে পারে ◈ শামিকে প্রতিমাসে ৫০ হাজার রুপি দিতে হবে হাসিনকে ◈ ‘ইউক্রেনে পুড়বে পশ্চিমা ট্যাংক’ ◈ রাষ্ট্রপতি নির্বাচন ১৯ ফেব্রুয়ারি ◈ একটি সংস্করণে বাবরের অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেওয়া উচিত: আজহার ◈ অবশেষে সিদ্ধান্ত বদলাল জার্মানি, সুখবর দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রও ◈ মোংলা বন্দরে লাইটার জাহাজডুবি ◈ সাত পাকে বাঁধা পড়লেন রাহুল-আথিয়া ◈ ২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পুতিন কি প্রার্থী হচ্ছেন? ◈ অবসরের পর মৃত্যু হলে পেনশনের অর্ধেক সমর্পণ ◈ তারকা হয়েও যাকে ফলো করেন রিজওয়ান ◈ সুইডেনের বিরুদ্ধে গোটা বিশ্বে নিন্দার ঝড়

For Advertisement

হিদায়েত ঐক্য শান্তির জন্য আর্জি

২৩ জানুয়ারি ২০২৩, ১১:২১:৪৪

আত্মশুদ্ধি, ইহ ও পারলৌকিক কল্যাণ, হিদায়েত, নবিওয়ালা জীবন; দেশের সমৃদ্ধি ও নিরাপত্তা; বিশ্বে মুসলমানদের ঐক্য ও নির্যাতিতদের মুক্তি এবং বিশ্ব শান্তি কামনায় আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। এর মধ্য দিয়ে সমাপ্তি ঘটল দাওয়াতে তাবলিগের ৫৬তম এ বৈশ্বিক আয়োজনও। ১৩-১৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হয় প্রথম পর্ব।

আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন ভারতের নিজামুদ্দিন মারকাযের মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ কান্ধলভী। তিনি ওই মারকাযের শীর্ষ মুরুব্বি মাওলানা সাদ আহমদ কান্ধলভীর বড় ছেলে। দুপুর ১২টা ১৫ মিনিটে শুরু করে ১২টা ৪৪ মিনিট পর্যন্ত ২৯ মিনিটের আবেগঘন এ মোনাজাতে অযুত কণ্ঠে উচ্চারিত হয়েছে রাহমানুর রাহিম আল্লাহর মহত্ত্ব ও শ্রেষ্ঠত্ব

এ সময় মনিব-ভৃত্য, ধনী-গরিব, নেতাকর্মী নির্বিশেষে সব শ্রেণির মানুষ পরওয়ারদিগার আল্লাহর দরবারে দুই হাত তুলে কৃতকর্মের জন্য নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন। হিদায়েত চান। তুরাগ তীরের জনসমুদ্র থেকে মধ্যাহ্নের আকাশ কাঁপিয়ে ধ্বনি উঠে-‘আমিন, আল্লাহুম্মা আমিন’। রেডিও ও স্যাটেলাইট টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচার ও মুঠোফোনের মাধ্যমে দেশ-বিদেশের আরও লাখ লাখ মানুষ একসঙ্গে হাত তুলেছেন পরওয়ারদিগারের শাহি দরবারে। কান্নায় বুক ভাসিয়েছেন। আখেরি মোনাজাতে অন্যদের মধ্যে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর জেলা প্রশাসক আনিসুর রহমান, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম অংশ নেন।

আখেরি মোনাজাত উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ রেলওয়ে পাঁচটি বিশেষ ট্রেন চালায় এদিন। এ ছাড়া নিয়মিত ট্রেনগুলো তো ছিলই। বিশেষ বাস চালায় বিআরটিসিও। মেট্রোরেল চালু ছিল বিকাল ৫টা পর্যন্ত। এরপরও পরিবহণ সংকটে ফিরতি মানুষকে পোহাতে হয় বহু ঝক্কি। আর এ সুযোগে ২ থেকে ১০ গুণ পর্যন্ত ভাড়া নিয়েছে বিভিন্ন পরিবহণগুলো। বহু মানুষকে ফিরতে হয়েছে হেঁটেই।

ইজতেমায় আসা কয়েক লাখ মুসল্লি তো ছিলেনই, শুধু মোনাজাতে শরিক হতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বহু মানুষ ছুটে আসেন টঙ্গীতে। শনিবার রাত ১২টার পর থেকে টঙ্গীমুখী সব রকমের যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়ায় দীর্ঘ পথ হেঁটেই পৌঁছাতে হয়েছে বহু মানুষকে। ভোর থেকে যানবাহনশূন্য সড়ক-মহাসড়ক ও নদীপথে টুপি-পাঞ্জাবি পরা মানুষের বাঁধভাঙা জোয়ার শুরু হয়।

ইজতেমায় আসা কয়েক লাখ মুসল্লি তো ছিলেনই, শুধু মোনাজাতে শরিক হতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বহু মানুষ ছুটে আসেন টঙ্গীতে। শনিবার রাত ১২টার পর থেকে টঙ্গীমুখী সব রকমের যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়ায় দীর্ঘ পথ হেঁটেই পৌঁছাতে হয়েছে বহু মানুষকে। ভোর থেকে যানবাহনশূন্য সড়ক-মহাসড়ক ও নদীপথে টুপি-পাঞ্জাবি পরা মানুষের বাঁধভাঙা জোয়ার শুরু হয়।

প্রতীক্ষার অবসান ঘটে দুপুর ১২টা ১৫ মিনিটে। মোনাজাতে মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ কান্ধলভী প্রথম ১০ মিনিট মূলত পবিত্র কুরআনে বর্ণিত দোয়ার আয়াতগুলো উচ্চারণ করেন। শেষ ১৯ মিনিট তিনি উর্দু ও হিন্দি ভাষার সংমিশ্রণে দোয়া করেন। তিনি বলেন, হে আল্লাহ, আমাদের গুনাহ মাফ করে দিন। মুসলিম উম্মাহর প্রতি রহম করেন।

আমাদের ইমানের হাকিকত ও কামাল নসিব করেন। ইমানি জিন্দেগি নসিব করে দেন। হে আল্লাহ, ওলামাদের কদর করার তৌফিক দেন। কিয়ামত পর্যন্ত মসজিদ-মাদ্রাসাগুলোকে চালু রাখুন। আমাদের কুরআন-হাদিস পড়ার তৌফিক দান করুন। সারা জীবন যেন আপনার হাবিবের সুন্নতের ওপর চলতে পারি সেই তৌফিক দান করেন। নাফরমানি থেকে আমাদের হেফাজত করেন। হে আল্লাহ, একে অপরকে ভালোবাসতে পারি সেই তৌফিক দান করুন। আমাদের আখলাককে সুন্দর করে দেন। হে আল্লাহ, সব মুসলমানের ইমান-আমল, জানমাল, ইজ্জত-আব্রুকে হেফাজত করেন। দাওয়াতের কাজকে সারা দুনিয়ায় ছড়িয়ে দেন।

সমাপনী বয়ান : আখেরি মোনাজাতের আগে মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ কান্ধলভী ইমান, আমল, নামাজ, তাশকিল, তালিম, এলেম, জিকির ও দাওয়াতের গুরুত্ব তুলে ধরে দীর্ঘ বয়ান করেন। তিনি সমবেত মুসল্লিদের উদ্দেশে বলেন, আমাদের মাঝে ইমানের কমতি দেখা দিয়েছে, আমরা বর্তমানে ইমানের রোগী। তাই আমাদের মসজিদে এনে দাওয়াত দিয়ে ইমান মজবুত করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, মাথা ছাড়া যেমন মানুষ হয় না, তেমনি নামাজ ছাড়া কেউ মুসলমান হতে পারে না। একজন কাফেরের কুফরির পরিচয় হচ্ছে সে আল্লাহর সামনে সিজদা দিতে পারে না, আর একজন মুমিনের পরিচয় হচ্ছে সে নামাজ ছাড়া জীবনযাপন করতে পারে না। তিনি বলেন, মানুষ মসজিদের বাইরের পরিবেশে থেকে থেকে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, তাই তাদের বুঝিয়ে মসজিদের পরিবেশে এনে ইমান ও একিনের কথা বলতে হবে। এর আগে ফজরের নামাজের পর বয়ান করেন নিজামুদ্দিনের মাওলানা মোহাম্মদ মোরসালিন।

দ্বিতীয়পর্বে বিদেশি মেহমান : মিডিয়া সমন্বয়কারী মোহাম্মদ সায়েম জানান, আরবিভাষী ৬৮৮ জন, ইংরেজিভাষী ৩ হাজার ৩৪০, উর্দুভাষী ১ হাজার ৯৭০ জন, পশ্চিমবঙ্গ (ভারত) থেকে ২ হাজার ৬৩০ জন, অন্যান্য ভাষার ৪৮২ জনসহ ৬৫টি দেশের তাবলিগ জামাতের ৯ হাজার ১১০ বিদেশি মেহমান দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমায় অংশগ্রহণ করেন। ভারত, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, মিয়ানমার, চীন, সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে অধিক পরিমাণ মেহমান এসেছেন বলে তিনি জানিয়েছেন। প্রথম পর্বে ৬৮ দেশের সাড়ে প্রায় ছয় হাজার মুসল্লি অংশ নেন।

তিন দিনে সাত মুসল্লির মৃত্যু : শনিবার রাতে ও রোববার দুপুরে দুই মুসল্লি ইন্তেকাল করেছেন। তারা হলেন-কিশোরগঞ্জর সৈয়দ আলীর ছেলে আবু তাহের (৬৫) ও জামালপুরের বখশীগঞ্জ থানার রাজা মিয়ার ছেলে মাসুদুর রহমান (৫৮)। এ নিয়ে এ পর্বে অংশ নেওয়া ৭ মুসল্লির মৃত্যু হলো। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন লাশের জিম্মাদার মোহাম্মদ রফিক। প্রথমপর্বে আট মুসল্লি ইন্তেকাল করেন।

নারীদের অংশগ্রহণ : ইজতেমা বা মোনাজাতে নারীদের অংশগ্রহণের কোনো ব্যবস্থা ছিল না। তবে ময়দানের বাইরে বিভিন্ন রাস্তা, বাড়ি ও ভবনে মোনাজাতে অংশ নেন অনেক নারী। পুরুষদের পাশাপাশি বিভিন্ন বয়সি এসব নারীকে মাইলের পর মাইল হেঁটে টঙ্গী আসতে দেখা গেছে। ভিড়ের মধ্যে অনেক নারীর সমাগম কোনো কোনো ক্ষেত্রে বিব্রতকর পরিস্থিতিও তৈরি করে। টঙ্গীর সুরতরঙ্গ রোড এলাকা থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার হেঁটে টঙ্গী-কামারপাড়া রোডে এসে আখেরি মোনাজাতে অংশ নিয়েছেন নূরজাহান বেগম (৬৫), নিপা বেগম (২০), আক্তার বানু (৬৫)। তারা জানান, লাখ লাখ মানুষের সঙ্গে মোনাজাতে অংশ নিয়েছি আল্লাহর রহমত পাওয়ার জন্য। গাজীপুরের কাপাসিয়া থেকে আসা আছমা আক্তার বলেন, আমরা ৭ নারী ভোরে টঙ্গী পৌঁছাই। কোথাও বসার জায়গা না পেয়ে পলিথিন কিনে সড়কের পাশে বাটা শোরুমের সামনে অবস্থান নেই।

প্রায় তিন হাজার জামাত : ইজতেমা ময়দানের গণমাধ্যম সমন্বয়কারী মোহাম্মদ সায়েম বলেন, রোববার দুপুর পর্যন্ত ময়দান থেকে দেশি-বিদেশি ২ হাজার ৯৫০ জামাত দেশ-বিদেশের দাওয়াতি কাজে বেরিয়ে গেছে। দাওয়াতি মেহনতে দেশ-বিদেশে কাজ করবেন তারা। এর মধ্যে বিদেশি জামাত সাড়ে চারশ। প্রথম পর্বে বিদেশি তিনশসহ ৩ হাজার জামাত দেশ-বিদেশের দাওয়াতি কাজে বের হয়।

ফিরতি পথে ভোগান্তি : ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক, টঙ্গী-পূবাইল, টঙ্গী-বনমালা আঞ্চলিক সড়ক, টঙ্গী-আব্দুল্লাহ্পুর সড়ক ও কামারপাড়া-আশুলিয়া সড়কে জনস্রোতের সৃষ্টি হয়। কিন্তু ফেরার পথে দু-একটি পিকআপ ও মোটরসাইকেল ছাড়া অন্য কোনো গাড়ি না পেয়ে আবারও হেঁটেই বাড়ির দিকে রওয়ানা হন মুসল্লিরা। ময়মনসিংহের ভালুকা থেকে আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে আসা আইয়ুব আলী জানান, ফেরার পথে পরিবহণ সংকটে ভোগান্তিতে পড়েছেন। আশুলিয়া থেকে আসা কামরুল ইসলাম বলেন, ফেরার সময় কোনো গাড়ি না পেয়ে হেঁটেই রওয়ানা দেই।

গাজীপুরের কাপাসিয়ার বাসিন্দা আব্দুল জলিল বলেন, লাখো মানুষের সঙ্গে হাঁটতে পেরে ক্লান্তি দূর হয়ে গেছে। টঙ্গী বিশ্ব ইজতেমা আয়োজক কমিটির মুরুব্বি প্রকৌশলী শাহ মোহাম্মদ মুহিবুল্লাহ জানান, আলহামদুলিল্লাহ। কোনো প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই এবারের ৫৬তম ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের সমাপ্তি ঘটেছে। তিনি আয়োজনে সহযোগিতাকারী সবাইকে আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে মোবারকবাদ জানান।

For Advertisement

পূর্বাকাশ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Comments: