হেডলাইন
◈ একদিনে হাসপাতালে রেকর্ড ৪৩৮ ডেঙ্গু রোগী! ◈ আমার গ্রাম-আমার শহর’ বাস্তবায়নে ২৪৫ প্রকল্প ◈ সীমান্তের ঘটনায় আরাকান আর্মি-আরসার ওপর দায় চাপালো মিয়ানমার! ◈ ভারতে ইলিশ রপ্তানি বন্ধে স্থায়ী নির্দেশনা চেয়ে রিট! ◈ সাংবাদিক শাকিল হাসানকে হত্যাচেষ্টার মামলায় রায় ১৮ অক্টোবর! ◈ যুবলীগের সম্পাদক নিখিলসহ ৫০০ জনের বিরুদ্ধে বিএনপির মামলার আবেদন! ◈ শহীদ আফ্রিদির সংস্থায় সেই ব্যাট দিলেন নাসিম শাহ ◈ হঠাৎ মোদি ও এরদোগানের বৈঠক ◈ সাগরে আবারও লঘুচাপ সৃষ্টির আভাস, বাড়তে পারে বৃষ্টি ◈ নতুন রুপে আবার অভিনয়ে নিয়মিত রত্না ◈ ওমরাহ পালনে সৌদি গেলেন টাইগার অলরাউন্ডার ◈ জাতীয় পার্টি কোনো জোটে নেই: জিএম কাদের ◈ রানির শোভাযাত্রায় ডায়ানার যে স্মৃতি মনে দাগ কেটেছে প্রিন্স উইলিয়ামের ◈ মৃত্যুর পরে কি হয় তাদের লাশ || ◈ শান্তর ভূয়সী প্রশংসায় যা বললেন শ্রীরাম ◈ রাশিয়ার বিরুদ্ধে যে অঙ্গীকার করলেন জেলেনস্কি ◈ বিএনপি নেতা শাহ মোয়াজ্জেম আর নেই ◈ ফের নাম্বার ওয়ান অলরাউন্ডার সাকিব ◈ রাশিয়া প্রথমবারের মতো ইরানের ড্রোন ব্যবহার করেছে ◈ ভারত সফরে বাংলাদেশ কী পেল, যা বললেন প্রধানমন্ত্রী
হোম / আন্তর্জাতিক / বিস্তারিত

For Advertisement

পুতিনের নতুন পররাষ্ট্রনীতি ঘোষণা

৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১:৩৭:৩৮

ইউক্রেন যুদ্ধ ঘিরে পশ্চিমাদের সঙ্গে বৈরি সম্পর্কের মধ্যে একটি ‘রুশ বিশ্বের’ দর্শনের ভিত্তিতে নতুন পররাষ্ট্রনীতি পরিকল্পনা অনুমোদন করেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।
সোমবার অনুমোদন পাওয়া এই নীতিতে বলা হয়েছে, রাশিয়ার উচিত স্লাভিক দেশগুলো, চীন এবং ভারতের সঙ্গে সহযোগিতা বাড়ানোর পাশাপাশি মধ্যপ্রাচ্য, লাতিন আমেরিকা ও আফ্রিকার সঙ্গে সম্পর্ক আরও মজবুত করা। খবর রয়টার্সের।

এছাড়া ২০০৮ সালে জর্জিয়ার সঙ্গে যুদ্ধের পর মস্কো থেকে স্বাধীনতার স্বীকৃতি দেওয়া আবখাজিয়া ও ওসেটিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক আরও গভীর করাসহ পূর্ব ইউক্রেনে দোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক ও লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকের সঙ্গেও সম্পর্ক জোরদার করা উচিত বলে উল্লেখ করা হয়েছে পুতিনের নতুন নীতিতে।

এছাড়া ২০০৮ সালে জর্জিয়ার সঙ্গে যুদ্ধের পর মস্কো থেকে স্বাধীনতার স্বীকৃতি দেওয়া আবখাজিয়া ও ওসেটিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক আরও গভীর করাসহ পূর্ব ইউক্রেনে দোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক ও লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকের সঙ্গেও সম্পর্ক জোরদার করা উচিত বলে উল্লেখ করা হয়েছে পুতিনের নতুন নীতিতে।

ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের ছয় মাসেরও বেশি সময় পর পুতিনের ৩১ পৃষ্ঠার এই পররাষ্ট্রনীতি পরিকল্পনা প্রকাশিত হলো, যাকে বলা হচ্ছে ‘মানবহিতৈষী নীতি’। এতে বলা হয়েছে, রুশ বিশ্বের ঐতিহ্য ও আদর্শ এগিয়ে নেওয়া এবং এর সুরক্ষা নিশ্চিত করবে রাশিয়া।

এই রুশ বিশ্বের ধারণা আদতে এক রক্ষণশীল মতাদর্শ। রক্ষণশীল মতাদর্শীরা এই ধারণাকে রুশভাষীদের সমর্থন দিতে অন্য দেশে হস্তক্ষেপ করার যৌক্তিকতা নিরূপণে ব্যবহার করে থাকেন। যেমন- ইউক্রেনের কিছু কিছু স্থানে রুশভাষী মানুষ আছে।

১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে যাওয়ার পর ইস্টার্ন ব্লকের বেশ কিছু দেশ ইউএসএসআর থেকে বেরিয়ে গিয়ে স্বাধীন হয়েছে। কিন্তু সেসব দেশের প্রায় ২ কোটি ৫০ লাখ জাতিগত রুশ রাশিয়ার বাইরেই থেকে গেছে।

পুতিন সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনকে ভূরাজনৈতিক বিপর্যয় বলে মনে করেন এবং রুশভাষী ওই নাগরিকদের ভাগ্যবিড়ম্বনার শিকার হিসেবেই দেখেন। বাল্টিক থেকে মধ্য এশিয়া পর্যন্ত সাবেক সোভিয়েত রাষ্ট্রগুলো মস্কোর প্রভাব বলয়ের মধ্যে থাকাটাকেও তিনি বৈধ বলে মনে করেন।

রাশিয়া তাদের নতুন পররাষ্ট্রনীতি পরিকল্পনাকে মানবহিতৈষী হিসেবে একটি সদয় ও নমনীয় ক্ষমতা কৌশল হিসেবে তুলে ধরলেও এতে মূলত রুশ রাজনীতি ও ধর্ম ঘিরে সরকারি নীতির ধারণাগুলোই ঠাঁই পেয়েছে।

For Advertisement

পূর্বাকাশ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Comments: