হেডলাইন
◈ একদিনে হাসপাতালে রেকর্ড ৪৩৮ ডেঙ্গু রোগী! ◈ আমার গ্রাম-আমার শহর’ বাস্তবায়নে ২৪৫ প্রকল্প ◈ সীমান্তের ঘটনায় আরাকান আর্মি-আরসার ওপর দায় চাপালো মিয়ানমার! ◈ ভারতে ইলিশ রপ্তানি বন্ধে স্থায়ী নির্দেশনা চেয়ে রিট! ◈ সাংবাদিক শাকিল হাসানকে হত্যাচেষ্টার মামলায় রায় ১৮ অক্টোবর! ◈ যুবলীগের সম্পাদক নিখিলসহ ৫০০ জনের বিরুদ্ধে বিএনপির মামলার আবেদন! ◈ শহীদ আফ্রিদির সংস্থায় সেই ব্যাট দিলেন নাসিম শাহ ◈ হঠাৎ মোদি ও এরদোগানের বৈঠক ◈ সাগরে আবারও লঘুচাপ সৃষ্টির আভাস, বাড়তে পারে বৃষ্টি ◈ নতুন রুপে আবার অভিনয়ে নিয়মিত রত্না ◈ ওমরাহ পালনে সৌদি গেলেন টাইগার অলরাউন্ডার ◈ জাতীয় পার্টি কোনো জোটে নেই: জিএম কাদের ◈ রানির শোভাযাত্রায় ডায়ানার যে স্মৃতি মনে দাগ কেটেছে প্রিন্স উইলিয়ামের ◈ মৃত্যুর পরে কি হয় তাদের লাশ || ◈ শান্তর ভূয়সী প্রশংসায় যা বললেন শ্রীরাম ◈ রাশিয়ার বিরুদ্ধে যে অঙ্গীকার করলেন জেলেনস্কি ◈ বিএনপি নেতা শাহ মোয়াজ্জেম আর নেই ◈ ফের নাম্বার ওয়ান অলরাউন্ডার সাকিব ◈ রাশিয়া প্রথমবারের মতো ইরানের ড্রোন ব্যবহার করেছে ◈ ভারত সফরে বাংলাদেশ কী পেল, যা বললেন প্রধানমন্ত্রী

For Advertisement

৫২ তম জন্মদিনে – ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল!

১ মে ২০২২, ১:৩০:৫০

 

 

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচিত সফল ও তুমুল জনপ্রিয় সেক্রেটারি ও প্রথিতযশা আইনজীবী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল। ১৯৭০ সালে ৩০ এপ্রিল ঝিনাইদহ জেলায় সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তৎপরবর্তীতে তিনি ১৯৮৬ সালে যশোর শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ঝিনাইদহের মহেশপুর হাইস্কুল থেকে প্রথম বিভাগে এসএসসি পাস করেন। ১৯৮৮ সালে যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজ থেকে মেধা তালিকায় স্ট্যান্ড সহ প্রথম বিভাগে এইসএসসি-তে উত্তীর্ণ হন তিনি। প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত, দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দৃঢ় আত্মপ্রত্যয়ী মো: রুহুল কুদ্দুস কাজল ১৯৯২ সালে এলএলবি অনার্স সম্পন্ন করেন। একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৯৩ সালে কৃতিত্বের সাথে এলএল.এম সম্পন্ন করেন। আবার যুক্তরাজ্যের বিখ্যাত লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় হতে এলএলবি (অনার্স) করেন ২০০৪ সালে। যুক্তরাজ্যের লন্ডনস্থ দি সিটি ইউনিভার্সিটি থেকে পিজিডিএল ডিগ্রি অর্জন করেন ২০০৫ সালে। বিশ্বের স্বনামধন্য যুক্তরাজ্যের দি অনারেবল সোসাইটি অব লিংকনস ইন থেকে ‘ব্যারিস্টার-এট-ল’ ডিগ্রি লাভ করেন কৃতিত্বের সাথে ২০০৬ সালে।

উত্তাল নব্বইয়ের স্বৈরাচারী আন্দোলনের সময় থেকেই বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন। কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের আইন বিষয়ক সম্পাদকের গুরু দায়িত্ব পালন করেন।

বিস্ময়কর প্রতিভাসম্পন্ন ব্যারিষ্টার মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল ১৯৯৫ সালে একজন নবীন আইনজীবী হিসাবে বাংলাদেশ বার কাউন্সিল থেকে এডভোকেটশীপ সনদ লাভ করেন। তখন থেকে আইনপেশায় সুদীর্ঘ ২৬ বছর তিনি আর পেছনে তাকাননি। ১৯৯৬ সালে তিনি বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের একজন আইনজীবী হিসাবে এনরোল্ট হন। ২০০৮ সালে দেশের সর্বোচ্চ আদালত বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আপীল বিভাগের আইনজীবী হিসাবে প্রেকটিস করতে অনুমতি পাওয়ার গৌরব অর্জন করেন।

হার নামানা, সাধারণ আইনজীবীদের অত্যন্ত সুহৃদ, মেধা ও মননে একজন সুশীল ব্যক্তিত্ব, সদা সহাস্যমুখ, নির্ভীক, আইনজীবীদের পেশাগত মান উন্নয়ন ও অধিকার প্রতিষ্ঠায় সদা ব্রত ও আধুনিক ধারার সফল কারিগর, মুক্ত মনের আইনজীবী ব্যারিষ্টার মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল এশিয়ার বৃহত্তম আইনজীবী সমিতি ঢাকা আইনজীবী সমিতি’র আজীবন সদস্য। জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থীদের নিয়ে গঠিত বাংলাদেশ আইন সমিতি, ব্যারিস্টার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (বিএবি), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এলএল.এম ল’ইয়ার্স এসোসিয়েশন (ডুলা), ঢাকাস্থ খুলনা বিভাগীয় আইনজীবী সমিতি, দক্ষিণবঙ্গ আইনজীবী সমিতি, ইন্টারন্যাশনাল বার এসোসিয়েসন, কমনওয়েলথ ল’ইয়ার এসোসিয়েন, ল’এশিয়া’র সদস্য সহ আইন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন আন্তর্জাতিক, জাতীয় ও আঞ্চলিক ফোরামের সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত।

কাজ পাগল ব্যারিষ্টার মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য। বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব, ঢাকা ক্লাব, উত্তরা ক্লাব, খুলনা ক্লাব, ধানমন্ডি ক্লাব সহ অনেক সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ক্রীড়া, শিক্ষা ও কল্যানকর প্রতিষ্ঠানের সদস্য। ২০০৩ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত লন্ডনস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশনের কুটনীতিক হিসাবে তিনি সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন।

ব্যক্তিগতভাবে অত্যন্ত স্বজ্জন, অমায়িক ও সদালাপী এ আইনজীবী নেতা ব্যারিষ্টার মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল ও সিনিয়র ব্যাংকার ফারজানা বেগম দম্পতি ২ কন্যা সন্তানের গর্বিত জনক ও জননী। তাঁদের প্রথম কন্যা যুক্তরাজ্যের বিখ্যাত কিংস কলেজে আইন বিষয়ে অধ্যয়নরত এবং কনিষ্ঠ কন্যা দেশের স্বনামধন্য ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল ‘সানসবীম’ ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী।

উল্লেখ্য বিগত ২০২০-২০২১ সেশনে করোনাকালীন সময়ে সেক্রেটারি হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর ৫ মাস সম্পূর্ণ লকডাউন থাকার পর বিজ্ঞ আইনজীবীদের কল্যান ও সুবিধার কথা চিন্তা করে তাৎক্ষণিক উন্নয়নমুখী কাজ গুলো শুরু করেছিলেন। ।

কভিড-১৯ এর হিংস্র থাবায় পুরো বিশ্বের মতো সারাদেশ যখন ক্ষত বিক্ষত, তখন তিনি ও তার পরিবারের সদস্যদের জীবনের প্রচন্ড ঝুঁকি থাকা সত্বেও প্রতিদিন সুপ্রীম কোর্ট অঙ্গনে এসে সমিতির সদস্যদের খোঁজ খবর নিয়েছেন। সমিতির দায়িত্ব নেওয়ার পর একদিনের জন্যও তিনি বারে অনুপস্থিত থাকেন‌ নি। সমিতির আইনজীবী ও তাঁদের পরিবারের সদস্যদের জন্য ৩ টি বিখ্যাত হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছিলেন। তারমধ্যে, একটিতে ফ্রি চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। সুপ্রীম কোর্টে আইনজীবীদের কল্যাণে হেলথ ক্যাম্প করেছিলেন। আইনজীবীদের কল্যাণে বুদ্ধি ভিত্তিক গুরুত্বপূর্ণ আইনী সেমিনারের ব্যবস্থা করা হয়েছে অনেক। আইনজীবী পরিবারের সকল সদস্যদের জন্য পারিবারিক মিলনমেলা ‘ফ্যামিলি ডে’ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করা হয়েছে।  প্রথম বারের মত স্পোর্টস এর আয়োজন করা হয়েছিল। প্রথমবারের মত আইনজীবীদের সন্তানদের জন্য ডে-কেয়ার সেন্টার স্থাপন করা হয়েছিল। বুকস্টল, জুতাপালিশ স্টল করা হয়েছে। সমিতির ৫ টি হলের মধ্যে মাত্র দুটি হল আধুনিকায়ন করা হয়েছে। বাকী ৩ টি হলও আধুনিকায়ন করার কাজ শুরু হয়েছে, যা প্রায় সম্পন্নের পথে । সর্বোপরি বিগত দুই সেশনের মধ্যে সুপ্রীম কোর্ট আইনজীবী সমিতির অবকাঠামোগত ও অন্যান্য সার্বিক কার্যক্রম উন্নয়ন, সংস্কার ও আধুনিকায়ন করার চেষ্টা করা হয়েছে। এর প্রতিদান স্বরূপ ২০২১-২২ নির্বাচনে তিনি বিপুল ভোটে পুনরায় সেক্রেটারি নির্বাচিত হন।

উল্লেখ্য, গত ১৫ ও ১৬ মার্চ, ২০২২ উৎসবমুখর পরিবেশে সুপ্রিম কোর্ট বারে ভোটগ্রহণ করা হয়। নির্বাচনে ব্যালট পেপার গণনা সম্পন্ন হলে সম্পাদক পদে আবদুল নুর দুলালের পরাজয় নিশ্চিত হওয়ায় তার পক্ষে একদল বহিরাগত আনুষ্ঠানিক ফলাফল ঘোষণায় নজিরবিহীন বিশৃংখলা সৃষ্টি করে। তা সত্ত্বেও সুপ্রিমকোর্টের সেক্রেটারি হিসেবে তিনি গণনায় এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো পাস করেন। সুপ্রিমকোর্ট বার নির্বাচন সংক্রান্ত কমিটির প্রধান সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সম্পাদক এ ওয়াই মশিউজ্জামনসহ নির্বাচন অনুষ্ঠানে জড়িত সদস্যদের সঙ্গে অশালীন আচরণ করা হয়। এ ঘটনায় নির্বাচন কমিশন প্রধান এ ওয়াই মশিউজ্জামান পদত্যাগ করেন।পরবর্তীতে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের আইনজীবীদের সমিতির নির্বাচন এ নানা বিতর্কের মধ্যে আওয়ামী লীগ সমর্থক আইনজীবীরা ভোট ‘পুনর্গণনা’ করে সম্পাদক পদে আবদুর নূর দুলালকে জয়ী ঘোষণা করা হয়েছে। তবে তার বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা।

এ ঘটনায় বিএনপি সমর্থিত নীল প্যানেল থেকে নির্বাচিত  সাতজন ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল এর বিরুদ্ধে অন্যায়ের প্রতিবাদ স্বরূপ সহ-সম্পাদক  মাহফুজ বিন ইউসুফ ও মাহবুবুর রহমান খান, ট্রেজারার মোহাম্মদ কামাল হোসেন, সদস্য ব্যারিস্টার মাহদীন চৌধুরী, গোলাম আক্তার জাকির, মো. মনজুরুল আলম সুজন ও কামরুল ইসলাম আজ সুপ্রিম কোর্ট কার্যনির্বাহী কমিটি থেকে পদত্যাগ করেন। যা সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের নির্বাচনে অদ্যাবধি একটি দৃষ্টান্ত হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

উল্লেখ্য যে আগামী ২৫ শে মে, ২০২২  বাংলাদেশ বার কাউন্সিল ইলেকশনে তিনি সাধারণ আসনে একজন প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন।

For Advertisement

পূর্বাকাশ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Comments: