হেডলাইন
◈ একদিনে হাসপাতালে রেকর্ড ৪৩৮ ডেঙ্গু রোগী! ◈ আমার গ্রাম-আমার শহর’ বাস্তবায়নে ২৪৫ প্রকল্প ◈ সীমান্তের ঘটনায় আরাকান আর্মি-আরসার ওপর দায় চাপালো মিয়ানমার! ◈ ভারতে ইলিশ রপ্তানি বন্ধে স্থায়ী নির্দেশনা চেয়ে রিট! ◈ সাংবাদিক শাকিল হাসানকে হত্যাচেষ্টার মামলায় রায় ১৮ অক্টোবর! ◈ যুবলীগের সম্পাদক নিখিলসহ ৫০০ জনের বিরুদ্ধে বিএনপির মামলার আবেদন! ◈ শহীদ আফ্রিদির সংস্থায় সেই ব্যাট দিলেন নাসিম শাহ ◈ হঠাৎ মোদি ও এরদোগানের বৈঠক ◈ সাগরে আবারও লঘুচাপ সৃষ্টির আভাস, বাড়তে পারে বৃষ্টি ◈ নতুন রুপে আবার অভিনয়ে নিয়মিত রত্না ◈ ওমরাহ পালনে সৌদি গেলেন টাইগার অলরাউন্ডার ◈ জাতীয় পার্টি কোনো জোটে নেই: জিএম কাদের ◈ রানির শোভাযাত্রায় ডায়ানার যে স্মৃতি মনে দাগ কেটেছে প্রিন্স উইলিয়ামের ◈ মৃত্যুর পরে কি হয় তাদের লাশ || ◈ শান্তর ভূয়সী প্রশংসায় যা বললেন শ্রীরাম ◈ রাশিয়ার বিরুদ্ধে যে অঙ্গীকার করলেন জেলেনস্কি ◈ বিএনপি নেতা শাহ মোয়াজ্জেম আর নেই ◈ ফের নাম্বার ওয়ান অলরাউন্ডার সাকিব ◈ রাশিয়া প্রথমবারের মতো ইরানের ড্রোন ব্যবহার করেছে ◈ ভারত সফরে বাংলাদেশ কী পেল, যা বললেন প্রধানমন্ত্রী
হোম / লাইফস্টাইল / বিস্তারিত

For Advertisement

স্বপ্ন তার নিজেকে একজন সফল নারী উদ্যোক্তা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা!

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ১২:৪৭:১৪

সাধারন মানুষের অসাধারন হয়ে ওঠার পেছনে একটা গল্প থাকে। সেই গল্পের বাঁকে বাঁকে থাকে সংগ্রাম। স্বাধীনচেতা মানুষেরা একটু বেশীই সংগ্রামী হয়। যেখানে সম্ভব নয় সেখানেই তারা বিজয়ের নিশান ওড়ান। কিন্তু সেই গল্পের কেন্দ্রীয় চরিত্রে যখন একজন নারী তখন তার পথটা বোধহয় আরও বেশী সংগ্রামের হয়। তেমনই একজন মহসিনা আরিফা।নিজে কিছু করবে তেমনটাই ইচ্ছে ছোট থেকে। কিন্তু সেটা ঠিক কি তা নির্দিষ্ট না থাকলেও করতে হবে এতটুকু জানতেন। সারাদিন ফেসবুকিং করতে করতে হটাৎ করে ই-কমার্সের ব্যপারে ঘাটাঘাটি শুরু হয়। যতই জানার পরিধি বাড়তে থাকে ততই এ ব্যবসায়ের প্রতি আগ্রহ আরো বেড়ে যায়।

মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়। স্বপ্ন দেখেন নিজেকে উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলার। মনের মধ্যে সে স্বপ্ন বুনেই একটু একটু করে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন তরুণ উদ্যোক্তা। প্রতিষ্ঠা করেন অনলাইন ফ্যাশন ব্র্যান্ড হাউজ ‘Aiza’, যেখানে তিনি নিজে পোশাক ডিজাইন করেন।

তার এ উদ্যোগ থেকেই অল্প সময়ে বেশ ভালো সাড়া পাচ্ছেন।তিনি স্বপ্ন দেখেন নিজেকে একজন সফল নারী উদ্যোক্তা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার। মহসিনা আরিফা বলেন, ‘২০১৮ সালের শেষ দিকে এসে নিজে মনস্থির করি যে, উদ্যোক্তা হবো, ব্যবসা শুরু করবো। যেই ভাবা সেই কাজ। আমি খুবই আত্মনির্ভরশীল একটা মেয়ে যার কারণে পরিবারের কোনো সাপোর্ট ছাড়াই নিজের একটা আলাদা পরিচিতি তৈরি করতে চেয়েছি। এর জন্য পড়াশুনা সামলিয়ে আমাকে প্রচুর পরিশ্রম করতে হয়েছে প্রোডাক্টিভ কিছু করার, এখনও করছি। আমার ব্র্যান্ডের জন্য পোশাকের ডিজাইন আমি নিজে করি। সবসময় চেষ্টা থাকে নতুনত্ব রাখার এবং ইউনিক কিছু করার।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানাতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি, মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়। নিয়ত সৎ থাকলে সৃষ্টিকর্তা তাকে সফলতার পথ দেখাবেন। ভবিষ্যতে আমার ব্র্যান্ডটি নিয়ে অনেকদূর এগিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। দেশের সব জায়গায় আমার আউটলেট ছড়িয়ে দিতে চাই, সেই লক্ষ্যেই এখন কাজ করে যাচ্ছি ।’

কেন ফ্যাশন ডিজাইনার পেশায় আসলেন?

জানালেন- আগে থেকেই নিজের পোশাকের ব্যাপারে পরিপাটি ও সচেতন ছিলাম। মূলত পোশাকের এই সচেতনতা ও আধুনিকতার মেলবন্ধন হচ্ছে মূলত ফ্যাশন ডিজাইনিং। অ্যাক্যাডেমিক্যালি ফ্যাশন ডিজাইনিং না পরলেও নিজের ব্যক্তিত্ব ও রুচি কে পোশাকের মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলাটাও এক ধরনের শিল্প। লেখাপড়া শেষ করে নিজের ভেতরে এক ধরনের তাগিদ থেকে রুচিশীল ও সম্মানজনক পেশায় নিজেকে দেখতে গিয়েই ফ্যাশন ডিজাইনিংয়ের পেশায় নিজেকে জড়িয়ে ফেললাম।

প্রশ্ন ছিল -উদ্যোক্তা হবার ক্ষেত্রে কি ধরনের গুণ থাকা আবশ্যক?

দেখুন , যে কোনো পরিস্থিতির মোকাবিলায় আপনার ইতিবাচক মনোভাব অনেক বড় পার্থক্য গড়ে দিতে পারে। বিশেষ করে আপনি যদি একজন উদ্যোক্তা হয়ে থাকেন। নিঃসন্দেহে এ যাত্রায় আপনাকে অনেক ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে। এ ধরনের পরিস্থিতিতে ছাত্রসুলভ মনোভাব, খোলা মন ও বহুমুখী মানসিকতা বজায় রাখতে হবে। যাত্রাপথে অসংখ্য ভুল ও ব্যর্থতা আসবে। কিন্তু অহংকার এড়িয়ে চলতে হবে এবং একই ভুলের পুনরাবৃত্তি যেন বারবার না হয়, সেদিকে বিশেষ নজর দিতে হবে।

এই পেশায় চ্যালেঞ্জ গুলো কি কি?

জানালেন- ব্যবসা করতে গেলে নানা রকম চ্যালেঞ্জ আসবেই। কাঁচামালের সরবরাহ নিশ্চিত করা, নির্ভরযোগ্য সরবরাহকারী খুঁজে পাওয়া, পেমেন্ট গ্রহণ করা, ভালো একটি ডেলিভারি অংশীদার খুঁজে পাওয়া, বিভিন্ন ধরনের মানুষের সঙ্গে কাজ করা (বিশেষ করে প্রচুর ‘অভদ্র’ মানুষ তো আছেই), বিপণন করা, কখনো হাল ছেড়ে না দেওয়া, নতুন পণ্য ও সেবা চালু করার জন্য উদ্ভাবনী ক্ষমতার ব্যবহার এবং বিভিন্ন কঠিন সিদ্ধান্ত নেওয়া; এসবই উদ্যোক্তাদের দৈনন্দিন জীবনের অংশ।

নারী হিসেবে উদ্যোক্তা হয়ে ওঠার কি একটা বাড়তি চ্যালেঞ্জ?

নিঃসন্দেহে…এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই যে আমাদের দেশে একজন স্বাধীন নারী হিসেবে সফল হওয়া অনেক কঠিন একটি ব্যাপার। মেয়েদের জন্য পরিবেশ পরিস্থিতি কখনোই পুরোপুরি অনুকূল থাকে না।একজন নারী উদ্যোক্তার ক্ষেত্রে বৈষম্যের শিকার হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে। তিনি সতর্ক করেন, এতে নারী উদ্যোক্তাদের নিরুৎসাহিত হওয়ার কিছু নেই। তিনি বলেন, ‘এ থেকে উত্তরণের সেরা উপায় হচ্ছে এমন কিছু মানুষের সমর্থন জোগাড় করা, যারা আপনার সক্ষমতা সম্পর্কে জানেন এবং যারা আপনার সক্ষমতা সম্পর্কে আপনাকে সন্দিহান হতে দেবেন না।’

নতুন যারা উদ্যোক্তা হতে চায় তাদের কি করা উচিত ?

প্রতিটা উদ্যোগের পিছনে নির্দিষ্ট একটা উদ্দেশ্য থাকতে হবে। সোশ্যাল মেসেজ থাকতে হবে; বা কোনও সমস্যার সমাধান। আইডিয়াটা হওয়া উচিৎ অন্যদের চাইতে ইউনিক। তার জন্য সবার আগে মার্কেটটা জরিপ করা প্রয়োজন। জানা দরকার কি ধরনের পণ্য নিয়ে কাজ করলে উদ্যোগটা সফল হবে। আর অবশ্যই সুদূরপ্রসারী কর্মপরিকল্পনা প্রয়োজন।প্রত্যেকের উচিত একটা বিজনেস প্ল্যান নিয়ে আগানো। পাশাপাশি কিছু বিষয় সম্পর্কে ছোট ছোট কর্মশালা করতে পারলে ভাল। যেমন: ডিজিটাল মার্কেটিং, ফাইনান্স, কাস্টমার মানেজম্যান্ট ইত্যাদি। সবচেয়ে বড় বিষয় হলো, প্রথম ৬ মাস বা ১ বছরে কোনও ধরনের রিটার্ন আশা না করা। ধৈর্যধারণ করতে হবে এবং অবশ্যই সৎ থাকতে হবে। তবে ভয় পাওয়ার কিছুই নেই। মনে সাহস নিয়ে শুরু করাটা অনেক বড় ব্যাপার।

উদ্যোক্তা হয়ে উঠতে গেলে অনেক প্রতিবন্ধকতা থাকবে, চ্যালেঞ্জ থাকবে, কিন্তু সেটা উতরে উঠা তেমন কঠিন কিছু না। মনে সাহস রাখতে হবে। নারীদের প্রতিবন্ধকতা অনেক। একটা সময় ছিল যখন পরিবার থেকে সাপোর্ট পাওয়া যেত না। এখন সেই জায়গাটা বদলেছে। সবচেয়ে বড় কথা, সিদ্ধান্তহীনতা থেকে বের হয়ে আসতে হবে।

For Advertisement

পূর্বাকাশ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Comments: